Ultimate magazine theme for WordPress.

ইসলামী ব্যাংকের প্রায় তিন কোটি টাকা আত্মসাত মামলায় দুই কর্মকর্তা ও এক ব্যবসায়ীর ৫ বছর করে জেল ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা

478

বগুড়ায় ইসলামী ব্যাংকের ২ কোটি ৯৫ লক্ষ ১৮ হাজার ৮৮১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ব্যাংকের বরখাস্তকৃত দুই কর্মকর্তা ও এক ব্যবসায়ীকে পাঁছ বছর করে কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও প্রত্যেকের ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ৩মাসের কারাদন্ড প্রদান কা হয়। বগুড়ার স্পেশাল জজ এমরান হোসেন চৌধুরী বুধবার এ রায় দেন। দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন. ইসলামী ব্যাংকের বগুড়া শাখার সাবেক ম্যানেজার (বর্তমানে চাকরিচ্যুত) সারওয়ার আলম, ফরেন এক্সচেঞ্জ বিভাগের ইনচার্জ (বর্তমানে চাকরিচ্যুত) এরশাদ আলী ও মেসার্স রেজা এন্ড কোম্পানিরর স্বত্বাধিকারী রেজানুর রহমান রেজা।দন্ডিতদের মধ্যে সারওয়ার আলম রায় ঘোষনার সময় উপস্থিত ছিলেন অন্য দু’জন পলাতক। বিজ্ঞ আদালত দন্ডিতদের আত্মসাতকৃত ২ কোটি ৯৫ লাখ ১৮ হাজার ৮৮১ টাকা রাষ্ট্রের অনূকুলে বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেন। যদি আত্মসাতকৃত অর্থ দন্ডিতরা রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট খাতে জমা না দেন তবে তাদের স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি হতে বিধি মোতাবেক আদায় করা যাবে।দুর্নীতি দমন কমিশনের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবুল কালাম আজাদ জানান, শহরের শিবববাটির মৃত জিল্লার রহমানের ছেলে রাজাবাজার এলাকার রেজা এন্ড কোং এর স্বত্বাধিকারী রেজানুর রহমান রেজা ইসলামী ব্যাংকের গ্রাহক ছিলেন। তিনি ওই দুই ব্যাংক কর্মকর্তার সাথে যোগসাজস করে ১৯৯৫ সালের ১১ নভেম্বর থেকে ১৯৯৮ সালের ১ এপ্রিলের মধ্যে ১২টি এলসি (লেটার অব ক্রেডিট) খুলে মার্জিন ছাড়াই ২ কোটি ৯৫ লাখ ১৮ হাজার ৮৮১আত্মসাত করেন। এ ঘটনায় তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরোর পরিদর্শক আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে ২০০৪ সালের ৩১ জানুয়ারি বগুড়া সদর থানায় ওই তিনজনের নামে মামলা করেন। প্রায় ৯ বছর ধরে তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৫ মে চার্জশীট দাখিল করা হয়। সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে আদালত বুধবার উপরোক্ত রায় ঘোষনা করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.