Ultimate magazine theme for WordPress.

ওয়ার্ডপ্রেসের ড্যাশবোর্ড

826

ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু ব্যবস্থাপনার জনপ্রিয় সফটওয়্যার ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরি করার সব কাজই এর ড্যাশবোর্ড থেকে করতে হয়। ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করার পর ওয়ার্ডপ্রেসে ঢুকে (লগ-ইন) যে পেজটি দেখা যায়, সেটিই হলো ওয়ার্ডপ্রেসের ড্যাশবোর্ড। ড্যাশবোর্ডের বাম দিকে অনেকগুলো মেনু (অপশন) রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে হোম, পোস্ট, মিডিয়া, পেজ, কমেন্টস, অ্যাপিয়ারেন্স, প্লাগইনস, ইউজার, টুলস, সেটিংস ইত্যাদি। পোস্ট অপশন থেকে নতুন পোস্ট, ক্যাটাগরি তৈরি করা, আগের তৈরি করা পোস্ট দেখা, এডিট করা, ডিলিট করার কাজ করা যায়। মিডিয়া অপশন থেকে নতুন ছবি, অডিও, ভিডিও যোগ করা, গ্যালারি তৈরি করা, আগের যোগ করা ছবি, অডিও, ভিডিও দেখা, এডিট করা, ডিলিট করার কাজগুলো করা যায়। একইভাবে কমেন্ট অপশন থেকে আগের কমেন্টগুলো দেখা, প্রয়োজনে এডিট করা, ডিলিট করা যায়।
অ্যাপিয়ারেন্স অপশন থেকে নতুন থিম যোগ করা যাবে। এ ছাড়া থিম ইনস্টল করার পাশাপাশি অ্যাকটিভ করা, ডি-অ্যাকটিভ করা, কাস্টমাইজ করা, ওয়েবসাইটের মেনু তৈরি করাসহ সম্পাদনার কাজগুলোও করা যায়। এই অপশনটি হলো ওয়ার্ডপ্রেসের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। থিম হলো একটি ওয়েবসাইটের চেহারা। ওয়েবসাইটটি দেখতে কেমন হবে, তা নির্ভর করে ওয়েবসাইটের থিমের ওপর। ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে নতুন কোনো ফাংশন যোগ করার জন্য প্লাগইন ব্যবহার করা হয়। প্লাগ–ইনস অপশন থেকে নতুন প্লাগইন চাইলে যোগ করা যাবে। এ ছাড়া এডিট করা, ডিলিট করার কাজগুলোও এখান থেকে করা সম্ভব। ইউজার অপশন থেকে নতুন ইউজার যোগ করা এবং অন্য কাজগুলো করা যাবে। টুলস অপশন থেকে ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের সব ডেটা (পোস্ট, পেজ, ফাইল ইত্যাদি) এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট করা যাবে। সেটিংস অপশন থেকে করা যাবে ওয়েবসাইটের ইউআরএল (লিংক), হোম পেজ, ব্লগ পেজ, পারমালিংক ইত্যাদি এডিট করার কাজটি। ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানা যাবে http://goo.gl/hXOQUI ঠিকানায়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.