Ultimate magazine theme for WordPress.

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক কর্তৃক অপদস্ত স্কুলের শিক্ষক

1,314

নিজস্ব প্রতিবেদক ::
কোম্পানীগঞ্জে ৫এপ্রিল বজ্রপাতের ঘটনায় আহত ছাত্রকে চিকিৎসা করাতে গিয়ে সঠিক পরামর্শের বদলে চিকিৎসক কর্তৃক অশোভন আচরনের শিকার হয়ে অপদস্ত হলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। ৬এপ্রিল বৃহস্পতিবার বিকালে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে বলে চরপার্বতি এস.সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ.কে.এম রফিক উল্যাহ অভিযোগ করে জানান।

অভিযোগে প্রধান শিক্ষক এ.কে.এম রফিক উল্যাহ জানান, ৫এপ্রিল বুধবার চরপার্বতি এস.সি উচ্চ বিদ্যালয়ে বজ্রপাতের ঘটনায় গুরুতর আহত সৌরভ মজুমদার(১১) নামে ৭ম শ্রেনীর এক ছাত্র বৃহস্পতিবার বিকেলে হটাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই ছাত্রের পরিবারের লোকজনসহ তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসে। পরবর্তীতে ডাক্তারের পরামর্শ মতে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ডাক্তারের কাছে রোগীর জন্য বেডের কথা বললে তারা জানান কোন সিট খালি নেই, বারেন্দায় থাকতে হবে। পরে তিনি টাকা দিয়ে সিট নিবে বললে একজন নার্স জানান বেড ব্যবস্থা করে দেয়া যাবে। গুরুতর অসুস্থ ছাত্রের জন্য বেডের ব্যবস্থা করার পর তিনি জরুরী বিভাগের প্রেসক্রিপশন নিয়ে এসে ঔষধের বিষয়ে ও টাকার বিনিময়ে বেডের বিষয়ে জানতে চাইলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবদুর রহিম প্রধান শিক্ষকের সাথে বিতর্কে লিপ্ত হন এবং প্রশ্ন করার কারনে ওই শিক্ষকের সাথে অশোভন ও অশ্লীল আচরন করে বলেন তারা কারো কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য নয়।

এ বিষয়ে জানতে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক আবদুর রহিমকে বার বার ফোনে চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
এমতাবস্থায় প্রধান শিক্ষকের প্রশ্ন একজন গরীব ছাত্র সরকারী হাসপাতালে এসে কি টাকার বিনিময়েই চিকিৎসা সেবা পাবে, না হয় কি পাবে না?

এদিকে চিকিৎসক কর্তৃক অপমানের শিকার প্রধান শিক্ষক এ.কে.এম.রফিক উল্যাহ তাৎক্ষনিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সেলিমের সান্নিধ্য না পেয়ে এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ জামিরুল ইসলামের স্বরনাপন্ন হয়েছেন।

উল্লেখ্য, সরকারি হাসপাতালে রোগীদের ভোগান্তি দীর্ঘ দিন ধরে লেগেই আছে। দালালদের দৌরাত্ব ঠেকাতে এবং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মান উন্নয়নের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের অাপ্রান চেষ্টার পরও কিছু কিছু ক্ষেত্রে কমছেনা রোগীদের দুর্ভোগ।

বিশেষ সূত্রে জানা যায়, হাসপাতালের পাশেই কয়েকজন ডাক্তারের নিজের প্রাইভেট হাসপাতাল ও নিজস্ব প্রাইভেট চেম্বার থাকায় সরকারি হাসপাতালে ডাক্তারদের কাছ থেকে সঠিক সেবা পায় না রোগীরা। এসব ক্ষেত্রে কয়েকজন ডাক্তার গুরুতর রোগীদের মৌখিকভাবে নিজেদের হাসপাতালে রেফার করার অভিযোগও রয়েছে। সরকারি বেতনভুক্ত চিকিৎসকদের এমন আচরনে সাধারন গরীব রোগীদের সর্বদা সুচিকিৎসা পেতে বেগ পেতে হচ্ছে।

 

কেএইচপি

Leave A Reply

Your email address will not be published.