Ultimate magazine theme for WordPress.

জেলা পরিষদ নির্বাচনে নোয়াখালীতে ভোট নিয়ে শংকা প্রকাশ স্বতন্ত্র প্রার্থীর

856

 

জেলা প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ভয়-ভীতি ও শংকা প্রকাশ করেছেন চশমা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) চেয়ারম্যান প্রার্থী ডা: এ কে এম জাফর উল্যাহ।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টায় কবিরহাট উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের যাদবপুরস্থ নিজ বাসভবনে সংবাদিকদের কাছে এ শংকার কথা প্রকাশ করেন তিনি।

ডা: এ কে এম জাফর উল্যাহ বলেন, ২৮ ডিসেম্বর নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি চশমা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। কিন্তু তার প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগের মনোনিত হওয়ায় তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে গিয়ে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন হুমকি ধমকি ও বাধার শিকার হচ্ছেন। শুধু তাই নয় প্রতিপক্ষ ডাঃ এ বি এম জাফর উল্যাহ দলীয় ও প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের প্রভাব খাটিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক ও ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে না আসার জন্য হুমকি দিয়ে আসছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্থানে আ.লীগের এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়ররা মতবিনিময়ের নামে ভোটারদের একত্রিত করে মোটা অংকের টাকা প্রদান করেন। একই সাথে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষের সম্ভাব্য ভোটারদের ডেকে এনে প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর টেবিল ফ্যান প্রতীকে ভোট দিতে চাপ প্রয়োগ করছে। যা নির্বাচন আচরণ বিধি লঙ্ঘনের শামিল।

তিনি অভিযোগ করেন, গত রোববার (২৫ ডিসেম্বর) প্রার্থী হওয়া স্বত্বেও তার বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে তাকে হয়রানি করছেন। বিভিন্ন সময় তার সমর্থকদের বাড়িতেও পুলিশ পাঠাচ্ছেন এমপিরা।

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত ভোটার ছাড়া ভিন্ন দলের (বিএনপি-জামায়াত-অন্যান্য) ভোটারদের তালিকা করে তাদেরকে ভোট কেন্দ্রে না আসতে খোদ পুলিশও প্রভাবিত করছে। আ.লীগের বিভিন্ন মহল থেকে তাঁকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য হুমকি অব্যাহত রয়েছে। সরে না দাঁড়ালে নির্বাচনের দিন তাকে ও তার এজেন্টদেরকে কেন্দ্রে যাতে না যায় সে বিষয়ে হুশিয়ারি দিয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডা: এ কে এম জাফর উল্যাহ বলেন, রিটার্ণিং কর্মকর্তা, পুলিশ সুপার, সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তাসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে এসব বিষয়ে তিনি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে কর্তৃপক্ষ তাকে নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য এবং ভোটারদের নির্বিগ্নে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদানের নিশ্চয়তা দিয়েছেন। তার পরও প্রতিপক্ষের অব্যাহত হুমকি, ধমকি, টাকা ও দলীয় প্রভাব মুক্ত করে নির্বাচনকে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ এবং ভোটারদের নির্বিগ্নে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার পরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরসহ প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

ডা. এ কে এম জাফর উল্যাহ’র অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ডা. এ বি এম জাফর তা অস্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, সকল প্রার্থীর সমর্থকরা মাঠে ভোট করছেন। কেউ কাউকে কোন প্রকার বাধা দিচ্ছে না।

 

এম.আর রিয়াদ/কেএইচপি

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com