Ultimate magazine theme for WordPress.

দৌড়ে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়ার পথে কোম্পানীগঞ্জের আরাফাত

3,023

কায়ছার হামিদ পাপ্পু :

স্পোর্টস দিয়ে দেশকে বিশ্বের কাছে পরিচিত করার প্রবল ইচ্ছা থেকে স্বপ্ন দেখছেন ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেয়ার। ‘রান ফর হেলদি বাংলাদেশ’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়ায় দৌড় শুরু করেছেন বাংলাদেশের উদীয়মান এক তরুণ। মোঃ সামশুজ্জামান আরাফাত নামে এই তরুণ স্বপ্ন দেখছেন সুস্থ, সবল ও স্বাস্থ্য সচেতন নতুন এক বাংলাদেশের।
৭১বাংলা নিউজের সাথে এক বিশেষ সাক্ষাতকারে এমনটাই বলছিলেন, ‘দ্য গ্রেট বাংলাদেশ রানের’ সদস্য ব্যংক কর্মকর্তা মোঃ সামশুজ্জামান আরাফাত।

টেকনাফ থেকে দৌড় শুরু ২৬বছর বয়সী এ তরুণের, উদ্দেশ্য দেশের দক্ষিনের পঞ্চগড় জেলার শেষ পয়েন্ট তেঁতুলিয়া। ২৪ফেব্রুয়ারী শুক্রবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রঙ্গনে ইন্টারন্যাশনাল হলের সামনে দেখা মিলল দেশের উদীয়মান এ তরুণের।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুছাপুর গ্রামের এ তরুণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচে ছাত্র সদ্য স্নাতকোত্তর শেষ করে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যংকে চাকুরী করছেন।
‘দি গ্রেট বাংলাদেশ রান’ টিম এর সহযোগীতায় তেঁতুলিয়া পর্যন্ত ১০০৪ কি.মি. দৌড়ের মাঝে ১০ম দিনের মধ্যে দৌড়ে ৪৫০ কি.মি. এরও বেশি পথ পার করে পথিমধ্যে সামান্য কিছুক্ষন অবসর কাটাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শিক্ষক ও বন্ধুদের সাথে পাওয়া যায় প্রচন্ড উদ্দমী তরুণ আরাফাতকে।

৭১বাংলা নিউজের সম্পাদক কায়ছার হামিদ পাপ্পুর সাথে আরাফাত(মাঝে)

ঢাকা থেকে উত্তরের তেঁতুলিয়ার দিকে দৌড় শুরু করার আগে তার সাথে থাকা দি গ্রেট বাংলাদেশ রান টিমের সাথে ৭১বাংলা নিউজের কথা হলে তারা জানান, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যংকের সহযোগীতায় ‘রান ফর হেলদি বাংলাদেশ’ এই প্রত্যয় নিয়ে ১৫ফেব্রুয়ারী টেকনাফ পয়েন্ট থেকে দৌড় শুরু করে সে। ছোট খাটো ইঞ্জুরিকে গুরুত্ব না দিয়ে লক্ষ্যে অবিচল আরাফাত দৌড়ে চলেছেন। আগামী ৫ মার্চের মধ্যে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ায় পৌঁছাতে পারবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে তার টিম। ১৬কোটি সুস্থ ও সম্বৃদ্ধিশালী মানুষের বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন নিয়ে তার এই উদ্যোগ।

একজন তুখোড় সাতারু তিনি ২০১৫ ও ২০১৬সালে পর পর দু’বার পাড়ি দিয়েছেন টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন ১৬ দশমিক ০১ কি.মি. দূরত্ব।
গত ২০১৬সালে ভারতের মেঘালয়ে চেরাপুন্জী ম্যারাথনে অংশগ্রহণ করে ৪২কি.মি. ফুল ম্যারাথন সম্পন্ন করেন। তার পরবর্তি স্বপ্ন ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিবেন এবং একদিন এভারেষ্টের চূড়া স্পর্শ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন।

একান্ত সাক্ষাতকারে আরাফাত বলেন, আমাদের দেশে স্পোর্টসের কোন প্রচারণা নেই। স্পোর্টস একটা দেশকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে। নতুন প্রজন্মের কাছে স্পোর্টসকে তুলে ধরতে তার এ পরিশ্রম। তিনি বলেন আমরা যেন স্পোর্টসকে ভালবাসি। আমি একা ম্যরাথন দৌড়লে হবেনা, সবাইকে উৎসাহিত করতে হবে। তাহলে একদিন অলিম্পিকে সোনা জিতে আনবে বাংলাদেশ।
তিনি আরো বলেন, সু্স্থ থাকা সবার জন্য জরুরী। নিয়মিত দৌড় যে কাউকে কঠিন রোগ থেকে দূরে রাখবে, সুস্থ রাখবে। যা ১৬কোটি মানুষকে জানাতে হবে। এতে মানুষের উন্নতি হবে। দেশের কর্মক্ষমতা বাড়বে। তাই প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া এই বিশাল দূরত্ব অতিক্রম করার প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন অনেক বাধা বিপত্তি অতিক্রম করে।

কঠিন একটি লক্ষ্য নিয়ে নিজের সাথে নিজে প্রতিনিয়ত প্রতিযোগিতা করে যাচ্ছেন আরাফাত। তার এই মহৎ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডাঃ দীপু মনিসহ দেশের অনেক উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা। সকলে তার সুস্থতা ও সফলতা কামনা করেন।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com