Ultimate magazine theme for WordPress.

পলাশবাড়ীতে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচীর উপকার ভোগিদের ভাতা প্রদানে অনিয়ম

429

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা : গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে উপজেলার বেতকাপা ও পবনাপুর ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচির (ইজিপিপি)আওতায় চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে উপকার ভোগিদের নীতিমালা বহিঃর্ভূত ভাতা প্রদানে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগে জানা যায় উপজেলার বেতকাপা ইউপির ৩’শ ২৭ ও পবনাপুর ইউপির ২’শ ৫৫ জনসহ উপকারভোগী মোট জব কার্ডধারী রয়েছে।
বৃহস্পতিবার সরেজমিন গিয়ে জানা যায় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক(রাকাব)শাখার অধীনে বেতকাপা ইউনিয়ন এলাকার ৩’শ ২৭ এবং ঢোলভাঙ্গা কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক(রাকাব) শাখার অধীনে পবনাপুর ইউনিয়ন এলাকার ২’শ ৫৫ জন উপকার ভোগিদের মাঝে সরাসরি ভাতা প্রদান করার কথা।
কিন্তু ওই দুই ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যগন সরকারি নিয়মনীতির কোন তোয়াক্কা না করে রহস্যজনক ভাবে ভূক্তভোগিদের সম্পূর্ণ আড়ালে রেখে নিজেরাই জবকার্ড হাতে করে নিয়ে ব্যাংকে জমা দিচ্ছেন।জবকার্ডধারী প্রকৃত সংখ্যার তুলনায় নগন্য সংখ্যক উপকার ভোগির উপস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক ক্যাশ থেকে টাকা উত্তোলন করেন।
পরবর্তীতে উত্তোলনকৃত অর্থ পকেটস্থ করে নিজ বাড়ী অথবা অন্য তৃতীয় কোন স্থানে গিয়ে সমুদয় অর্থের একটি আংশিক অংক উপকার ভোগিদের মাঝে প্রদান করছেন।ওই অর্থের আংশিক একটি অংক ইউপি সদস্যরা পকেটস্থ করছেন।এতে উপকার ভোগিরা তাদের ন্যায়্য পাওনা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
এমন গুরুতর অনিয়মের বিষয় নিয়ে বেতকাপা ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল করিমের সাথে কথা বলতে গিয়ে তাকে না পেয়ে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও ফোন বন্ধ পাওয়ায় এ ব্যাপারে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
অপরদিকে ; পবনাপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম মন্ডল জানান সুবিধাভোগিদের নিকট থেকর ইউপি সদস্যদের টাকা কেটে নেয়ার বিষয়টি আমার সম্পূর্ণ অজানা।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উপ-সহকারি প্রকৌশলী রাসেল আহমেদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,
টাকা কর্তনের বিষয়টি সম্পূর্ণ নীতিমালা পরিপন্থী।
উপকার ভোগিরা সরাসরি স্ব-শরীরে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শাখায় উপস্থিত হয়ে নির্দিষ্ট নিজ একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করার নিয়ম।
অপরদিকে;সংশ্লিষ্ট স্ব-স্ব ব্যাংকের দায়ীত্বপ্রাপ্ত অফিসার সুবিধাভোগি জব কার্ডধারীদের স্বহস্তে স্বাক্ষর গ্রহন পূর্বক অর্থ প্রদান না করার বিষয়টি রহস্যজনক।কোন অবস্থাতেই কার্ডধারী ব্যতিত অপর কাউকে টাকা প্রদান করার বিষয়টি সম্পূর্ণ বেআইনি।
তিনি বলেন বিষয়টি সরেজমিন তদন্ত সাপেক্ষ বাস্তবতা পাওয়া গেলে জড়িত দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.