Ultimate magazine theme for WordPress.

পুলিশে তোলপাড়–বদলিতে ঘুষ বানিজ্য!

313

 

কনক দেব – পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ যখন দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কড়া অবস্থান নিতে নির্দেশ দিয়েছেন, তখন একজন ওসির বদলিতে ৬০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার ঘটনায় পুরো পুলিশ প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

আগে হরহামেশাই শোনা যেত অমুক অফিসার এত টাকার বিনিময়ে আসলেন! এত টাকার বিনিময় ভালো থানায় গেলেন! থানার দালাল, এলাকার বিভিন্ন নেতার মুখে কোন অফিসার থানায় আসলে বা অন্য থানায় বদলি হলে এগুলো আলোচনার মুখ্য বিষয় হয়ে থাকতো।

এই ঘটনায় পুলিশের সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, গত১৫জুলাই,বুধবার বিকালে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে আইজিপি বেনজীর আহমেদ পুলিশের সব ইউনিটের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে জুম মিটিংয়ের সময় ৬০ লাখ টাকা ঘুষের বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসে। তারপর থেকেই এই ঘটনায় সর্বত্র তোলপাড় তৈরি হয়।

এ দিন আইজিপি তার বক্তৃতায় পুলিশকে জনমুখী গড়ে তুলতে মাদক ও দুর্নীতিমুক্ত করার কথা বলতে গিয়ে বলেন, ‘গতকাল ৬০ লাখ টাকার বিনিময়ে থানায় একজন ওসিকে বদলি করা হয়েছে।

পুলিশ প্রধানের এমন তথ্যে কর্মকর্তাদের ভেতর আলোড়ন তৈরি হয়। প্রশ্ন উঠে; কোন থানায় কোন কর্মকর্তা এ কাজ করেছেন? পুলিশ কর্মকর্তারা নিজ নিজ থানায় বদলি হওয়া ওসিদের খোঁজ-খবর নিতে থাকেন।

করোনাকালে ও সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অভিযান চলার সময়ে বর্তমান আইজিপির দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত পুলিশ গড়ায় ৫ দফা কর্মসূচি ঘোষণার পরও এমন ঘটনায় হতবাক হয়ে যান কর্মকর্তারা।

সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের কেউ কেউ এই মহাদুর্যোগের সময় ঘুষ নেয়া কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

যদিও আইজিপি তার বক্তৃতায় কোন থানায় এই ঘটনা কিংবা কোন কর্মকর্তা এই ঘুষ নিয়েছেন, তার নাম উল্লেখ করেননি। তবে সম্প্রতি বদলি হওয়া ওসিদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

ওই জুম বৈঠকের পর থেকেই সর্বত্র আলোচনা ৬০ লাখ টাকা নিয়ে। সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণাদি পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, তা জানার চেষ্টাও করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সম্প্রতি গাজীপুরের শ্রীপুর ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটনের তিনটি থানার ওসি বদল করা হয়।

এর মধ্যে গতকাল ১৫ জুলাই চট্টগ্রামের বন্দর, ইপিজেড ও পতেঙ্গা থানার ওসি বদল করা হয়। গাজীপুরের শ্রীপুর থানার ওসি হিসেবে গত ১৯ জুন সন্ধ্যায় যোগদান করেন আলমগীর হোসেন। কিন্তু পরের দিন (২০ জুন) সকালেই তিনি অন্য জেলায় বদলী আদেশ পেয়ে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন।

আলমগীর হোসেনকে গাজীপুরের পুলিশ সুপার দুই বছর আগে কালিয়াকৈর থানার ওসি হিসেবে নিয়োগ দেন। এরপর সেখানে থেকে তাকে ১৯ জুন শ্রীপুর থানা বদলি করেন।

বৈঠকে আইজিপির বক্তব্যের পর ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম নিজের বক্তৃতা দিতে গিয়ে এই ঘটনার বিচার দাবি করে বলেন, এমন দুর্যোগের সময় যে কর্মকর্তা ঘুষ নিয়েছেন, তাদেরকে কঠোর শাস্তি দিতে হবে।

সম্প্রতি আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, ‘পুলিশ সদস্যরা কোনোভাবেই কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না। পুলিশকে দুর্নীতিমুক্ত হতে হবে। যারা অবৈধ অর্থ উপার্জন করে বড়লোক হতে চাইবেন, তাদের পুলিশের চাকরি ছেড়ে বাড়ি গিয়ে ব্যবসা করতে হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com