Ultimate magazine theme for WordPress.

বগুড়ার শিবগঞ্জ ধানের শীষ নিয়ে ভাগ্য ফেরালো সাবেক সাংসদ হাফিজুর।

473

ধানের শীষ নিয়ে ভাগ্য ফেরানো সাবেক সাংসদ হাফিজুরকে নিয়ে বগুড়ার শিবগঞ্জের দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষোভঃ
দুর্দিনে তাকে কাছে না পাওয়ার শত অভিযোগ

এম বি এনঃ বগুড়ায় জাতীয় নির্বাচনে জনপ্রিয় প্রতীক ধানের শীষের জন্য এক সময় যে মানুষটি রাত-বিরাতে দলের ছোট-বড় বাছবিচার না করে সবার দ্বারে দ্বারে ঘুরতেন এবং এক সময় মনোনয়ন ও মার্কা নিশ্চিত করে সহজেই নির্বাচনী বৈতরনী পার হবার পর তার চোখ উল্টানোর ঘটনা এলাকার নেতাকর্মীরা যেমন, তেমনি এলাকার সাধারন মানুষও আজ তার সম্পর্কে সতর্ক অবস্থান নিতে বাধ্য হচ্ছেন। আর এই অতি কৌশলী মানুষটি হচ্ছেন এ্যাডঃ একেএম হাফিজুর রহমান। যিনি বগুড়ার শিবগঞ্জ আসন থেকে দুইবার বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আবারো তিনি বিএনপির টিকিট নিতে চেষ্টা তদবিরের জাল ফেলার কারনে শিবগঞ্জের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। তাদের অভিযোগ, ৭ বছর আগে তার প্রথম স্ত্রীর ইন্তেকালের পর বগুড়া বারের আরেক মরহুম আইনজীবীর স্ত্রীকে বিয়ে করেন। এরপর এ্যাডঃ হাফিজুর রহমান বগুড়া শহরের বাদুড়তলা এলাকায় তার বাড়ী ও পুত্রদের রেখে দ্বিতীয় স্ত্রীর বাবার বাড়ী গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জে নতুন বাড়ী নির্মাণ করে সেখানে গত ৫ বছর যাবৎ বসবাস করছেন। আর সেই সময় থেকে বগুড়ার শিবগঞ্জ এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীদের বিপদে আপদে ও মামলা মোকর্দ্দমায় তাকে না পাওয়ার অভিযোগ আর একারনে তার সাথে তৈরী হয়েছে সম্পর্কের দুরত্ব।
বগুড়া বার সমিতির সাবেক সভাপতি ও বগুড়া-২ শিবগন্জ থেকে ১৯৯৬ ও ২০০৮ বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত সাবেক এমপি প্রবীন আইনজীবী এ.কে.এম হাফিজুর রহমান দ্বিতীয় বিয়ে করে পরিবার সহ গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগন্জ পৌর সভায় নতুন বাড়ি নির্মান করে ২০১৪ সাল থেকে বসবাস করেন। দুবারের বিএনপির এই এমপি দলের দুর্দিনে নিজ এলাকা বা বগুড়া শহর ছেড়ে গোবিন্দগঞ্জ বসবাস করায় নির্বাচনী এলাকার জনসাধারণ ও নেতা কর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। প্রায় ৭৫ বছর বয়সী এই সাবেক এমপি প্রায় ৭ বছর আগে প্রথম স্ত্রী মৃত্যুবরন করলে বগুড়া বারের সিনিয়র আইনজীবী মরহুম এ্যাডঃএস,এ বারীর বিধবা স্ত্রী মোছাঃ নারগিস বারী(৩৫) কে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বিয়ে করেন। এস,এ বারীর একটি পুত্র সন্তানের নাম সিজার বর্তমানে সাবেক এমপি হাফিজুর রহমানের সঙ্গে থাকেন। দ্বিতীয় স্ত্রী নারগিস বারীর বিয়ের পুর্বের শর্ত অনুযায়ী বিয়ের পর দ্বিতীয় স্ত্রীর বাবা গোবিন্দগঞ্জের ময়না কাজীর নিকট থেকে বাড়ীর যায়গা নিয়ে ২০১৪ সালে সেখানে দোতালা বাড়ী নির্মান করে প্রথম স্ত্রী সন্তানদের পরিত্যাগ করে দ্বিতীয় স্ত্রী নারগিস বারী ও তার পক্ষের সন্তান সিজারকে নিয়ে গত ৫ বছর যাবৎ গোবিন্দগন্জ স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। সেখান থেকে সপ্তাহে ২/৩ দিন বগুড়া কোর্টে এসে মামলা পরিচালনা করেন। শিবগঞ্জ উপজেলার পিরব ইউনিয়নের বিএনপি নেতা- তসলিম বলেন, সাবেক এমপি হাফিজুর রহমান নেতাকর্মী ও গনবিচ্ছিন্ন নেতা। তিনি শুধুমাত্র ধানের শীষের জোরে নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর এলাকার কোনো উন্নয়ন করেন নি। নেতাকর্মীর কোনো খোঁজ খবর নেননি। বুড়িগঞ্জ বিএনপি নেতা সাবেক মেম্বার গোলাপ বলেছেন, ১/১১ পর হতে বিশেষ করে ২০১৩ ও ২০১৪ সালের আন্দোলনে এবং বর্তমানে দলীয় কোনো কর্মকান্ডে তাকে দেখা যায় না। তিনি একজন দুর্নীতিবাজ ব্যাক্তি। দেউলীর সাবেক চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বলেন, তিনি আমার ইউনিয়নের সন্তান হয়েও তিনি জনবিচ্ছিন্ন নেতা। এই বৃদ্ধ বয়সে তার দ্বিতীয় বিয়ে করা ঠিক হয় নি। দুবারের এমপি এলাকায় না থেকে জনগণের পাশে না থেকে শ্বশুরবাড়ি বাসভবন নির্মান করে গোবিন্দগন্জ বসবাস করা দুঃখজনক। আমি শুনেছি তিনি আবার নমিনেশন চাইছেন, তাকে বিএনপি নমিনেশন দিলে ফলাফল বিপর্যয় হবে। ময়দানহাট্টা ইউনিয়নের দুবারের চেয়ারম্যান বিএনপির প্রভাবশালী নেতা মাহবুব আলম মানিক বলেন, সাবেক এমপি হাফিজুর রহমান-বিএনপির দুর্দিনে কোনো নেতা কর্মীর খোঁজ খবর রাখেন না। বিপদে আপদে, মামলা মোকদ্দমায় পাশে থাকেন না বরং প্রশাসনের সাথে লিয়াজোঁ থাকায় তার নামে কোনো মামলা মোকদ্দমা নাই। নেতাকর্মী বিচ্ছিন্ন এই সাবেক এমপি এলাকা ছেড়ে গোবিন্দগন্জ বসবাস করা প্রমান করে বগুড়া বা শিবগন্জের প্রতি তার কোনো দুর্বলতা নাই।
এছাড়াও শিবগন্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায় সাবেক এই এমপি হাফিজুর রহমান দীর্ঘ ৫ বছর যাবৎ এলাকায় আসেন না। দলীয় কোনো কর্মসুচিতে দেখা যায় না। এই বৃদ্ধ বয়সে দ্বিতীয় বিয়ে করে শিবগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগ বানিজ্য, টি,আর কাবিখা গমচুরি করে টাকা আত্তসাৎ দুর্নীতি করে শ্বশুরবাড়ি গোবিন্দগন্জ বিলাসবহুল বাড়ি নির্মান করে বসবাস করায় তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা বিএনপির মনোনয়নের ক্ষেত্রে এ ধরনের নেতাকর্মী ও জনবিচ্ছিন্ন, দুর্নীতিবাজ ব্যাক্তিকে বাদ দিয়ে দলের দুর্দিনে নেতাকর্মীদের পাশে থাকা কর্মীবান্ধব, জনগনের নিকট গ্রহনযোগ্য ব্যাক্তিকে মনোনয়ন দেয়ার সুপারিশ করেছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.