Ultimate magazine theme for WordPress.

বগুড়ার সোনাতলায় ২২ গ্রামের ১৭ হাজার মানুষ পানিবন্দি

174

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলায় যমুনা ও বাঙালী নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ফলে গত কয়েক দিনে ৩ ইউনিয়নের ২২ গ্রামের ১৭ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানি বন্দি মানুষগুলো তাদের ঘরের মূল্যবান আসবাবপত্র নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

গত কয়েক দিনে অবিরাম বর্ষন ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার যমুনা ও বাঙালী নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ফলে ওই উপজেলার তেকানীচুকাইনগর, পাকুল্লা ও মধুপুর ইউনিয়নের ২২টি গ্রামে ১৭ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার তেকানীচুকাইনগর ইউনিয়নের ১৪টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়াও পাকুল্লা ইউনিয়নের ৬টি গ্রামের ৫ হাজার এবং মধুপুর ইউনিয়নের ২টি গ্রামের আড়াই হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বর্তমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মানুষ যখন কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ঠিক সেই সময়ে বন্যার পানি নদীকুলীয় মানুষের বসতবাড়ি ঘিরে ফেলেছে। এযেন মরার উপর খারার ঘা অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
এ বিষয়ে পাকুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ জুলফিকার রহমান শান্ত, মধুপুর ইউপি চেয়ারম্যান অসীম কুমার জৈন নতুন জানান, একদিকে মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। অপরদিকে বন্যার পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে অসহায় দরিদ্র মানুষগুলো। পানি বন্দি হয়ে পড়া মানুষগুলোকে ভালোভাবে বাঁচানোর জন্য ত্রাণ সামগ্রীর পাশাপাশি সার্বক্ষনিক ওই এলাকাগুলোতে মেডিকেলের তদারকি থাকতে হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান জানান, বর্তমান বন্যা পরিস্থিতিতে ২০ টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এছাড়াও নগদ ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫শ টাকা আজ বুধবার থেকে বন্যার্তদের মধ্যে বিতরণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com