Ultimate magazine theme for WordPress.

বগুড়া চার তারকা হোটেল নাজ গার্ডেন’র ’বার অবশেষে সিলগালা।

2,407

নিজস্ব প্রতিবেদক  বগুড়া চার তারকা হোটেল নাজ গার্ডেন বার অবশেষে সিলগালা করা হল, বগুড়া জেলা পুলিশ ও প্রশাসন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও সমন্বয়ে গঠিত ভ্রাম্যমান আদালতে এই বিতর্কিত বারটি সিল গালা করেন ।এভ্রাম্যমান আদালতের বিজ্ঞ বিচারক ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সুশান্ত কুমার মাহতার।এর আগে গত ১জুলাই বগুড়া জেলা প্রশাসন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও জেলা পুলিশের দলের সমন্বয়ে গঠিত ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুহা সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত বল্ক রেইড পরিচালনা করে প্রথমবারের মত বগুড়ায় অনুমোদন ছাড়া মদ পান করায় চার তারকা হোটেল বারে ঝটিকা অভিযান চালিয়ে ৩৩ যুবকের বিভিন্ন মেয়াদে জেল ও জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত ।

অভিযানে হোটেল নাজ গার্ডেন বারে ৩৬ জন উপস্থিত ব্যক্তির মাঝে অনুমোদন (পারমিট) ছাড়াই মদ ক্রয় ও পান করায় ২৩ জনকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে অপর ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত । এছাড়া মদ বিক্রি শর্ত ভঙ্গ করায় হোটেল বার ম্যানেজার শোয়েব আহমেদ দুলুকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় ।
নাজ গর্ডেন র্কর্তৃপক্ষ সরকারী নিময়নীতি উপেক্ষা করে অনুমোদন বিহীন এবং অপ্রাপ্ত যোবুকদের কাছে নিয়মিত ভাবে মদ সরবরাহ করছেন এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয় ।
এদিকে সংশ্লিষ্ঠ সূত্র জানায় , গোয়েন্দা নজরদারীর ভিত্তিতে তারা জানাতে পারেন ওই ঘটনার পরও বার কর্তৃপক্ষ তাদের অনৈতিক কর্মকান্ড চালু রেখে অনুমোদন নাই এমন ব্যাক্তি গ্রাহকের কাছে মদ সরবরাহ এবং বিক্রি করে আসছিলেন । যার প্রেক্ষিতে দ্বিতীয় দফায় দায়েরকৃত এক অভিযোগ পত্রের ভিত্তিতে গত ১৫ জুলাই সরকারের সংশ্লিষ্ট মমন্ত্রনালয় চার তারকা হোটেল নাজ গার্ডেনের বারের অনুমোদন এবং লাইছেন্স বাতিল করেন।
অপরদিকে তৃতীয় দফায় অভিযানে ২১ জুলাই তারিখে বগুড়া জেলা প্রশাসন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর সমন্বয়ে গঠিত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে হোটেল নাজ গার্ডেনের বারটি সিল গালা করে দেয়া হয় ।
এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুশান্ত কুমার মাহতার ছাড়াও মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের বগুড়া অফিসের উপ পরিচালক দিলারা রহমান উপস্থিত ছিলেন ।
উল্লেখ্য , বগুড়ায় চার তারকা হোটেল সহ বিভিন্ন তিন তারকা হোটেল ও বিভিন্ন আভিজাত হোটেল গুুলোতে  রাতের আধারে চলছিল অনুমোদন বিহীন জমকালো মদের আসর এবং নারী দিয়ে দিহ ব্যবসা  । এসব আসরে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে অপ্রাপ্ত বয়স্করা ভীর বাড়ছে অন্যদিকে অনুমোদন বিহীন গ্রাহকদের ভীর দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছিল । বর্তমানে নাজ গার্ডেনের বার সিল করা হলেও বগুড়ার বিভিন্ন স্থানে হোটেল বারে চলছে রমরমা মদের আসর এবংং নারী দিয়ে দেহ ব্যবসা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.