Ultimate magazine theme for WordPress.

বগুড়া শিবগঞ্জ মনোনয়ন সংগ্রহ করে  একাধিক প্রার্থী  জয়লাভ করতে মরিয়া হয়ে  ভোটের মাঠে ব্যস্ত।

598
  • বগুড়া শিবগঞ্জে একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন
  •  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কে সামনে রেখে বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ) আসনে ভোটের মাঠে এখন ব্যস্ত ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ও জাপা’র। আর কেন্দ্রের নির্দেশনার অপেক্ষায় রয়েছে বিএনপি। এদিকে নিরবে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে জামায়াতে ইসলামী। এ অবস্থায় মাঠ গোছাচ্ছে আওয়ামীলীগ ও জাপা। বগুড়ার অন্যতম আসন শিবগঞ্জ। ১২টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে উপজেলা গঠিত । এ আসনের ভোটার সংখ্যা প্রায় ৩লক্ষ। এ আসনটি বিএনপি, জামায়াত অধ্যশিত এলাকা। ৭৩ সালের পর এ আসন থেকে আওয়ামীলীগ বিজয়ী হতে পারেনি। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে এখানে জামায়াত প্রার্থী মাওঃ শাহাদাতুজ্জামান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতা এলেও বিএনপি প্রার্থী এ্যাডঃ হাফিজুর রহমান নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে বিএনপি প্রার্থী এ্যাডঃ রেজাউল বারী নির্বাচিত হন এবং সর্ব শেষ ২০০৮ সালে বিএনপি প্রার্থী এ্যাড.হাফিজুর রহমান নির্বাচিত হন।
    এর পর ২০১৪ সালের ৫জানুয়ারী মহাজোটের প্রার্থী বগুড়া জেলা জাতীয়পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ্ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৯ ও ২০১৪ সালে এ আসনে আওয়ামীলীগ জোটের প্রার্থীর কাছে আওয়ামীলীগ ছাড়া দিলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ছাড় দিতে নারাজ। তারা যে কোনো মুল্যে এবার আওয়ামীলীগের প্রার্থী চায়। আওয়ামীলীগ থেকে ১০ জন প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন পত্র তুলেছেন বলে জানা গেছে। তারা হলেন উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আজিজুল হক.সাধারন সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমা মোস্তা. সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ফকির, পৌর মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক, বিশিষ্ট শিল্পপতি মুক্তিযোদ্ধা (২০০৯-২০১৪ সালে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী) আকরাম হোসেন, জেলা পরিষদের সদস্য আঃ করিম, জেলা কৃষকলীগ নেতা এ্যাড. আঃ মোত্তালেব, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলী উপ-কমিটির সদস্য এ্যাড. আয়শা খাতুন পপি,কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছা সেবকলীগ নেতা এ্যাড. উজ্ঝল কানু, উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সাবেক সভাপতি সৈয়দ শাহাজাদা চৌধুরী এবং তার ছেলে সৈয়দ ওয়ালী মোকাররম চৌধুরী । জাতীয় পার্টি থেকে এবারও একক প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ, বিএনপি থেকে একক প্রার্থী হিসাবে দলের দুর্দিনেও সাহসিকতার সাথে দৃঢ় মনোবল নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশে থেকে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন থানা বিএনপির সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মীর শাহে আলম। ইহা ছাড়াও সাবেক সংসদ এ্যাড হাফিজুর রহমান. জেলা নেতা এম আর ইসলাম স্বাধীন, সাবেক ড্যাব নেতা ডা:আসিক মাহমুদ ও সাবেক এমপি নূর আফরোজ জ্যোতি গতকাল বুধবার পর্যন্ত এই ৫জন বিএনপি থেকে মনোনয়ন পত্র তুলেছেন বলে শোনা যাচ্ছে। জামায়াত ইসলামীর একক প্রার্থী হিসেবে সাবেক সংসদ সদস্য মাওঃ শাহাজাতুহজ্জামান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিউটি বেগম মনোনয়নপত্র উত্তোলন করেন। নাগরিক ঐক্যর আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ইসলামী আন্দোলনের জুয়েল আহম্মেদ, এ আসন থেকে নির্বাচন করবেন ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.