Ultimate magazine theme for WordPress.

বগুড়া সদরের নিশিন্দারা ইউনিয়ন বিএনপির ৫নং ওয়ার্ড কমিটি গঠনে মারামারি,আহত-৫

427

 

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়া সদর উপজেলার নিশিন্দারা ইউনিয়ন বিএনপির অন্তর্গত ৫ নং ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠন আজ অনুষ্ঠিত হয়। আজ শুক্রবার (১৯-০৩-২১) বিকাল ৩ টায় বারপুর সোনারপাড়াস্থ আলহাজ্ব আব্দুল করিম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ওয়ার্ড কমিটি গঠন উপলক্ষে আলোচনা সভা পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয়।

সভায় ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক ও নিশিন্দারা ইউপি চেয়ারম্যান সহিদুল ইসলাম সরকার ও যুগ্ম আহবায়ক মোফাজ্জল হোসেন মানিক এর সম্মতিক্রমে যারা যারা ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে আগ্রহী তাদের নাম প্রস্তাব করার আহবান জানান। তখন সভাপতি পদে শফিকুল ইসলাম মন্টু ও রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক পদে তাজমিলুর রহমান মিলু ও শাহীন তালুকদার এবং সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জামিল হোসেন মিস্টার ও জুয়েল হোসেন তাদের স্ব স্ব নাম প্রস্তাব করেন।

কিন্তু রফিকুল, মিলু ও জুয়েল প্যানেলে যারা উপস্থিত হয়েছিলো তারা অনেকেই বহিরাগত, বয়সে কিশোর এবং ব্যালট পেপারে ভোট হবে এমন অভিযোগ আনেন মন্টু, শাহীন ও মিস্টার গ্রুপ। অপরদিকে রফিকুল, মিলু ও জুয়েল গ্রুপে সদস্য সংখ্যা বেশি থাকায় তারা সমর্থন এবং কন্ঠ ভোটের দাবী জানান।

এমন অবস্থায় উপস্থিত সকলের মধ্য বিভাজন সৃষ্টি হয়। এমতাবস্থায় একপক্ষ অপরপক্ষকে দোষারপ করতে থাকে। এছাড়াও উক্ত ৫নং ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠনে যারা ভোটারের আসনে ছিলেন তাদের অনেকেই ছিলো সরকার দলীয় কমিটির সদস্যরা। তারমধ্য সভাপতি প্রার্থী রফিকুলের পক্ষে তার আপন ছোটভাই ও নিশিন্দারা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ এর সদস্য জাহেদুর রহমানকে দেখা যায় বিএনপির কর্মীদের সাড়িতে। এছাড়াও জাসদ থেকে মনোনীত ইউপি নির্বাচনে অংশ নেওয়া আবুল কালাম আজাদ নয়নকেও দেখা যায় পরের সাড়িতে। এছাড়াও যারা বিভিন্ন সময়ে সরকার দলীয় বিভিন্ন মিছিল মিটিং ও নির্বাচনী কাজে অংশগ্রহণ করা ব্যক্তিদেরকেও বিএনপির কর্মী সেজে দেখা যায়।

এত অভিযোগের মধ্যেও নিশিন্দারা ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক উপস্থিত সকলের সামনেই সভাপতি হিসাবে রফিকুল ইসলাম এর নাম ঘোষনার সাথে সাথে অপরপক্ষের লোকজন এই ঘোষনাকে অবৈধ এবং বাতিল দাবী করে চিৎকার করতে থাকে। তখন রফিকুল প্যানেলের লোকজন উত্তেজিত হয়ে পড়ে। তখন দুইপক্ষের মধ্য কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ভাঙ্গা হয়েছে স্কুলের বেঞ্চ ও নির্মানাধীন ভবনে রক্ষিত কাঠের অংশবিশেষ।

এসময় মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে করে উভয় পক্ষের ৫ জন আহত হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এব্যাপারে আহবায়ক সহিদুল ইসলাম সরকার বলেন” অপরপক্ষ তাদের হার নিশ্চিত জেনে কমিটি গঠন বানচাল করতেই এই বিশৃংখলা ঘটায়”। এদিকে যুগ্ম আহবায়ক মানিক জানান,” এই উদ্ভট পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য দায়ী স্বয়ং আহবায়ক সহিদুল চেয়ারম্যান নিজেই। তিনি উক্ত ওয়ার্ডে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটের প্রতিশ্রুতি দিলেও তা তিনি রক্ষা করতে পারেননি আর সেকারণেই অপরপক্ষ অনাস্থা প্রকাশ করেন”। হাতাহাতির ঘটনায় আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়িতে অবস্থান করছে।

এব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হুমায়ুন কবীর বলেন,” ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের মারামারি হচ্ছে এমন খবর শোনার সাথে সাথেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক আছে”।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com