Ultimate magazine theme for WordPress.

বিদেশ থেকে এসে আমাকে পারিবারিকভাবে ঘরে তুলবে বলে এখন আমায় চিনেই না

4,775

কোম্পানীগঞ্জ প্রতিবেদকঃ
বিয়ের কয়েকমাস পরই সে দেশের বাহিরে চলে যায়। কথা ছিল নিজে স্যাটেল্ড হওয়ার পর বিদেশ থেকে এসে আমাকে পারিবারিকভাবে বাসায় উঠায় নিবে। আমার ফ্যামিলিকেও এমনটা বুঝায়। এক পর্যায়ে আমার ফ্যামিলিও আমাদের ৭-৮বছরের সম্পর্কের কথা চিন্তা করে হাসানকে মেনে নেয়। কিছুদিন পর সে দেশের বাহিরে যায়। আমিও যথারীতি পড়াশুনা চালিয়ে যেতে থাকি। সে দেশের বাহিরে থাকাকালীনও কথা হত প্রায়। কখনও বুঝতে পারিনি হাসান আমাকে আজ এভাবে অস্বীকার করবে। এভাবে করেই নিজের প্রতারক স্বামীর কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন বাবনা আক্তার।

এ প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে গিয়ে প্রেমিকের প্রতারণার শিকার বাবনা আক্তার আরো জানায়, হাসান দেশে আসার কিছুদিন আগে থেকে হটাৎ তার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। বাবনা অনেক চেষ্টা করেও দীর্ঘ কিছুদিন যাবৎ হাসানের সাথে যোগাযোগ করতে পারেনি। হাসান দেশে আসার পর কোন এক মাধ্যমে তার সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে বাবনা হাসানের ভাড়াটে বাসা নোয়াখালীর বসুরহাটে আসে। কিন্তু এ আগমনকে হাসান মানতে পারেনি দুরন্ত প্রেমিক আবদুল্লাহ আল হাসান। অস্বীকার করে দীর্ঘ ৮বছরের প্রেমিকা ও ১০লাখ টাকা কাবিনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া স্ত্রীকে এবং হাসান অন্যত্র পালিয়ে যায়।

প্রতারক স্বামীর কাছ থেকে নিজের অধিকার পেতে ব্যর্থ হয়ে বাবনা বিয়ের কাবিনসহ সকল কাগজপত্র হাসানের পরিবারকে দেখালে তারা মেয়েটিকে অস্বীকার করে চলে যেতে বলে। কিন্তু প্রেমিকা বাবনা তার স্বামীর অধিকার পেতে টানা অনশন করার সিদ্ধান্ত নেয়।

হাসানের অন্যত্র বিয়ের কথা চলছে এমন সময় লোকজন জানাজানি হচ্ছে দেখে হাসানের পরিবার মেয়েটিকে ওই বাড়ী ত্যাগ করতে হুমকি দেয় এবং হাসানের বাবা কুদ্দুছ মেয়ের কাছে থাকা কাবিনে জরুরী কাগজপত্রের মূল কপি ছিনিয়ে নিতে চায়। এসময় হাসান তাকে ফোন করে মেরে পেলার হুমকি দেয়। ২দিন অনশনের পর উপায়ন্তর নাদেখে মেয়েটি তার পরিবারে খবর দিলে, তার মা পরিবারের লোকজন নিয়ে এসে অসুস্থ বাবনাকে ঢাকায় নিয়ে যায়। সর্বশেষ অসহায় বাবনা জানান, হাসান এখন অতীতের সব অস্বীকার করছে এবং বিয়ের কাবিনও মিথ্যা বলছে। সে প্রতিনিয়ত আমাকে বাড়াবাড়ি না করার জন্য হুমকি দিচ্ছে। আমি এ প্রতারকের বিচার চাই।

স্থানীয়সূত্রে জানা যায়, এ ঘটনার পর আবদুল্লাহ আল হাসান পলাতক রয়েছে। হাসান নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার হাবীবপুর এলাকার আবদুল কুদ্দুছের ছেলে।

এবিষয়ে জানতে হাসানের বাবা আবদুল কুদ্দুছ বলেন, মেয়েটি আমার ছেলের বউ দাবী করলেও তার কাছে কোন প্রমান নেই। তাছাড়া আমার ছেলে বলছে সে তাকে চিনে না। আমিও মেয়েটিকে আগে কখনও দেখিনি।

উল্লেখ্য, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভার করালিয়া ৩নং ওয়ার্ড এলাকায় স্বামী আবদুল্লাহ আল হাসানের(২৮) বাড়ীতে টানা ২দিন অনশন করেও কোন অধিকার পায়নি স্ত্রী বাবনা আক্তার। শুক্রবার দুপুরের পর থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড করালিয়া এলাকায় প্রবাসী হাসানের ভাড়া বাড়ী সাইফুল্লাহ মঞ্জিলে হাসানের দীর্ঘ ৮বছরের প্রেমিকা ও বিবাহিতা স্ত্রী বাবনা আক্তারের পারিবারিক মর্যাদার দাবীতে অনশনের করে। এসময় প্রেমিক হাসান বাবনাকে রেখে অন্যত্র পালিয়ে যায়।

 

(সর্বশেষ সংগৃহিত)

Leave A Reply

Your email address will not be published.