Ultimate magazine theme for WordPress.

মায়ের হাতে শক্ত করে ধরে ছেলেন মৃত্যুর পরও।

410

অনলাইন ডেস্কঃপাহাড়ি এলাকার সেই ঘরে দুপুরে ঘুমাচ্ছিলেন মা-ও-ছেলে।দেড় বছরের ছেলে ধ্রুবর হাত ধরেছিলেন ২১ বছর বয়সী মা গীথু।হঠাৎ ধস নামে পাহাড়ে।তার চাপায় সন্তানকে নিয়ে মারা যান গিথু। উদ্ধারকর্মীরা লাশ উদ্ধার করে। তখনও শক্ত করে হাত ধরে আছেন নাড়িছেড়া ধনের।ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বন্যাকবলিত রাজ্য কেরালায়। শুক্রবার দুপুরে মর্মান্তিক এই দৃশ্যের মুখোমুখি হয় উদ্ধারকর্মীরা। বন্যাবিধ্বস্ত রাজ্যটিতে জীবন-মৃত্যুর লড়াইয়ে কোলের সন্তানকে নিয়ে হেরে যান ওই মা।কেরালার মালাপ্পুরম এলাকা থেকে ঠিক এই অবস্থায়ই মা এবং তাঁর সন্তানের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।উদ্ধারকারী দলের বহু কর্মীর চোখে পানি এসে যায় এই ঘটনা দেখে। কোট্টাক্কুন্নু এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয় তাঁদের মরদেহ। গত কয়েক দিনে লাগাতার ধস নেমেছে এই অঞ্চলে। দুদিন ধরে বন্ধ যোগাযোগ ব্যবস্থাও।পুলিশ সূত্র উল্লেখ করে দেশটির গণমাধ্যম জানায়, মা-ছেলে দুপুরে ঘুমাচ্ছিল। দেড় বছরের ছেলে ধ্রুবর হাত ধরেছিলেন ২১ বছর বয়সী মা গীথু।ওই সময়ই পাহাড়ি এলাকায় আচমকা ধস নামে। মৃত্যু হয় গিথু আর তাঁর কোলের সন্তানের।ঘণ্টার পর ঘণ্টা উদ্ধারকার্য চালানোর পর উদ্ধার হয় সারথের স্ত্রী গীথু এবং পুত্র ধ্রুবের দেহ। উদ্ধারকারীদের কাছ থেকে জানা যায়।কাদাপানির ভেতর পাওয়া যায় তাঁদের মরদেহ। কিন্তু তখনও ছেলের হাত ধরেছিলেন মা।অন্যদিকে, গীথুর স্বামী সারাথের দেহ অক্ষত অবস্থায় মিললেও মারা গিয়েছেন সারাথের মা সরোজিনি। মালাপ্পুরমের কাছে কোট্টাক্কুন্নুর এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতেন সারথের পরিবার। গত সপ্তাহে এই এলাকা প্রায় ধসের কবলে তছনছ হয়ে গিয়েছে।গোটা পরিবারকেই হারিয়ে ফেলেছে সারাথ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.