Ultimate magazine theme for WordPress.

শিবগঞ্জে স্বামী কর্তৃক ৩ মাসের অন্তস্বত্বা স্ত্রী কে নির্যাতন হাসপাতালে ভর্তি বিচার চেয়ে পিতার আকুতি

450

শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ বগুড়ার শিবগঞ্জে এক অন্তস্বত্বা স্ত্রীকে স্বামী কর্তৃক নির্যাতন, হাসপাতালে ভর্তি নিষ্ঠুর জামাইয়ের বিচার চেয়ে মেয়ের পিতার আকৃতি।
জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলর দেউলী ইউনিয়নের তালিবপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল মতিনের কন্যা মোছাঃ মরজিনা বেগম(২৪),এর সাথে শিবগঞ্জ ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের আইয়ুব আলীর পুত্র মোঃ শরিফুল ইসলামের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে মরজিনা বেগমকে তার স্বামী বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক নির্যাতন করে। স্বামীর নির্যাতন মুখ বুঝে সহ্য করে সংসার করে আসছে। তাদের ঘরে একটি ফুটফুটেপ পুত্র সন্তান মোঃ মেহেদী হাসান জন্ম নেয়। কিন্তু পাষন্ড স্বামী দিন দিন অত্যাচারের মাত্রা বৃদ্ধি করতে থাকে। কিন্তু মর্জিনা তার সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে নিরবে সকল জ্বালা যন্ত্রনা সহ্য করতে থাকে। কিন্তু নিষ্ঠুর স্বামী ১ম স্ত্রী স্ত্রীকে না জানিয়ে গত ৬মাস পূর্বে সাথী নামে এক মহিলাকে বিয়ে করে। বিয়ে করার পর থেকে অত্যাচারের মাত্রা আরো বৃদ্ধি করে, মরজিনা বেগমের উপর চালাতে নির্যাতন । এর এক পর্যায়ে গত ২৩ শে মার্চ শরিফুল বেলা অনুমান ০১ টার দিকে বাড়িতে এসে কোনো কথা বলার আগেই ৩ মাসের অন্তস্বত্বা স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ও মারপিট করতে থাকে। ঘটনাস্থলে মর্জিনা বেগম অজ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাকে স্থানীয়ভাবে কিছু চিকিৎসা নেয়। কিন্তু তার অবস্থা শারীরিক অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। গতকাল সরেজমিনে হাসপাতালে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার জানান, মর্জিনা বেগমের প্রচুর পরিমাণে রক্ত ক্ষরণ হচ্ছে। ভালো হতে সময় লাগবে। এ ব্যাপারে চিকিৎসাধীন থাকা মর্জিনা বেগমের সাথে কথা বললে , তিনি বলেন আমার পেটে থাকা বাচ্চাকে আমার স্বামী মেরে ফেলতে চেয়েছিল, কিন্তু পারেনি। এখন আমার রক্ত ক্ষরণ হচ্ছে, কি হয় বলা যাচ্ছে না । আমি নিষ্ঠুর স্বামীর বিচার চাই। এ ব্যাপারে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.