Ultimate magazine theme for WordPress.

শিবগঞ্জ কে মাদক মুক্ত উপজেলা গড়তে চান ওসি মিজান

259

স্টাফ রিপোর্টারঃ উপজেলার মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের নির্মূল করতে অভিযানে নেমেছেন মিজানুর রহমান। তিনি এ উপজেলায় অফিসার ইনচার্জ হিসেবে যোগদানের পর প্রথম দিনেই ঘোষনা করেন মাদক নির্মল করার এবং সেই মোতাবেক একের পর এক মাদকের আস্তানায় অভিযান শুরু করেন।
ছোট একটি নাম মাদক, নামটি ছোট হলেও এর ভয়াবহতা অনেক। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে এর বিস্তার লাভ করায় যুব সমাজকে ধ্বংশ করছে। আর এই কারণে বর্তমান সরকার মাদক থেকে দেশকে মুক্ত করতে কাজ শুরু করে। সারা দেশের পুলিশ প্রশাসন মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেন। এরই অংশ হিসেবে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ এই এলাকা থেকে মাদক বিনাশ করতে কাজ শুরু করে। শিবগঞ্জ এলাকার বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ প্রথম বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েই শিবগঞ্জ কে মাদক ও জুয়া মুক্ত ঘোষনা করে ছিলেন। তিনি অনেকটা সফল হয়েছেন এলাকা থেকে জুয়া বন্ধ করে। কিন্তু এখন পর্যন্ত মাদক মুক্ত হয়নি। তিনি যে কোন মূল্যে মাদক মুক্ত এলাকা হিসেবে শিবগঞ্জ কে দেখতে চান। বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই শিবগঞ্জ উপজেলা থেকে মাদক নির্মূলে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবীর শিবগঞ্জে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন সমাবেশ সেমিনারে মাদকের ভয়াবহতা তুলে ধরে বক্তব্য দেন। তিনিও চান শিবগঞ্জ উপজেলা মাদক মুক্ত হোক।
শিবগঞ্জ থানার সাবেক ওসি শাহিদ মাহমুদ খান শিবগঞ্জ থেকে মাদক মুক্ত করতে কাজ করেছেন। তিনি বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করে আইনের আওতায় এনেছিলেন। বর্তমান অফিচার্জ ইনচার্জ মিজানুর রহমান শিবগঞ্জে যোগদান করার পরই ঘোষনা দেন মাদকের সাথে জড়িতদের কোন ছাড় নেই। বর্তমান সময়ে মাদক শহর থেকে প্রত্যান্ত গ্রাম অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। শিশু কিশোর আবাল বৃদ্ধ, ছাত্র-ছাত্রী, শ্রমিক, চাকুরীজীবি সবাই এই ছোট বস্তু তে আসক্ত হয়ে পড়েছে। এ সব মাদকের মধ্যে রয়েছে হেরোইন, গাঁজা, ফেন্সিডিল এবং হাল আমলের সবচেয়ে ভয়াবহ এবং সহজলভ্য ইয়াবা। সারা দেশে এ সব মাদকের কবলে পরে লক্ষ লক্ষ ছাত্র, যুবক ধ্বংসের পথে এগিয়ে চলছে। এ থেকে পিছনে নেই আমাদের এ উপজেলা দিনদিন বেড়েই চলছে সেবনকারী এবং বিক্রেতা ।শহর বন্দর থেকে এখন প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলেও এর বিস্তার লাভ করেছে। সব চেয়ে বেশী গ্রাস করেছে ইয়াবা। এটি এখন সর্বনাশা মাদক যা নেশাগ্রস্থ তরুণ তরুণীদের হিতাহিত জ্ঞানশূণ্য করে তোলে। বর্তমানে এটা শিক্ষক থেকে শুরু করে সরকারি চাকুরীজীবি, শ্রমিক থেকে ছাত্র যুবক সহ বিভিন্ন পেশার লোক এখন ইয়াবার আসক্ত। ট্যাবলেট জাতীয় এই মাদকের পরিবহন ও সেবন সহজ হওয়ায় স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরাও মাদকের জড়িয়ে পড়ছে। এর ফলে অত্র এলাকার অভিভাবকের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
এই নেশার টাকা জোড়ার করতে প্রায় পরিবারে অশান্তি লেগেই থাকছে। এর পর তারা ছিনতাই সহ নানা ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যানগণ নির্বাচিত হওয়ার পর নিজ নিজ এলাকা মাদক মুক্ত করার ঘোষনা দিলেও তারা শেষ পর্যন্ত নির্মূল করতে পারেনি। ওসি মিজানুর রহমান এই কারণে মাদক নির্মূল করতে অভিযান শুরু করেন। তিনি একের পর এক অভিযানে ছোট বড় মাদক ব্যসায়ীদের আটক করে এমন কি মাদক সেবন কারীদের তার কাছ থেকে রক্ষা পাননি। তিনি তাদেরকে আটক করে আইনের আওতায় এনেছেন। তার একটায় লক্ষ্য শিবগঞ্জ কে তিনি মাদক মুক্ত এলাকা ঘোষনা করা। এ ব্যাপারে ওসি মিজানুর রহমান এ প্রতিবেদক কে বলেন, মাদক একটি সমাজিক ব্যধি, এ থেকে যুব সমাজ ধ্বংস হচ্ছে। যুব সমাজকে রক্ষা করতে হলে এলাকা থেকে মাদক নির্র্মূল করা ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই। তিনি বলেন সকলে সহযোগিতা করলে শিবগঞ্জ এলাকাকে মাদক মুক্ত করা হবে ইনশাল্লাহ\

Leave A Reply

Your email address will not be published.