Ultimate magazine theme for WordPress.

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাজগঞ্জের দুটি ভাসমান সেতুতে মানুষের ঢল

59

 

 

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাজগঞ্জের দুটি ভাসমান সেতুতে মানুষের ঢল নেমেছে। আগত পর্যটকদের মধ্য নেই কোন স্বাস্থ্যবিধি । করোনা পরিস্থিতিতে বাইরে থেকে আসা পর্যটকদের পদচারণে মুখর ঝাঁপার দুই পাড়ের পর্যটন কেন্দ্রগুলো। পর্যটকরা স্বাস্থ্যবিধি না মানায় করোনা সংক্রমণের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে প্রশাসনকেও কোনো ধরনের পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। ঝাঁপার সেতু দুইটি ও পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেওয়ার ব্যাপারে এখনো প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত আসেনি। করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সেতু দুইটিতে পর্যটকদের গমনের ওপর জারিকৃত নিষেধাজ্ঞা এখনো বলবৎ আছে। এর পরও ঈদুল ফিতর প্রথম দিন থেকে এখানে পর্যটকের ঢল নেমেছে। দীর্ঘদিন ঘর বন্দী থাকার পর অনেকে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে পরিবার নিয়ে ছুটছে ভাসমান সেতু এলাকায়। দুইদিন ধরে বঙ্গবন্ধু ভাসমান সেতু ও জেলা প্রশাসক ভাসমান সেতু দুইটিতে হাজারো পর্যটক ছুটে আচ্ছে । কিন্তু ভ্রমণের ক্ষেত্রে পর্যটকরা মোটেই মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় মাস্ক ছাড়াই পর্যটকদের ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে। এতে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।খুলনা থেকে জাহাঙ্গীর আলম তার স্ত্রী ও ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে ভ্রমণ করতে আসেন। এদের কারও মুখে ছিল না মাস্ক। জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘শহরে বাসা থেকে বের হলে ঠিকই মাস্ক ব্যবহার করা হয়। মাস্ক ব্যবহার না করলে অনেক সময় প্রশাসনের অভিযানের মুখে পড়তে হয়। কিন্তু পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় বেড়াতে আসা কেউই মাস্ক ব্যবহার করেন না।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com